গ্রন্থারম্ভ

দ্বাপরের শেষ ভাগে রাজা যুধিষ্ঠির।
কলি প্রাদুর্ভাব দেখে হলেন অস্থির।।
একদিন শ্রীকৃষ্ণকে করে জিজ্ঞাসন।
কলির প্রভাব হতে কিসে পাবে ত্রান।।
শ্রীকৃষ্ণ কহেন শুন কহি সে বিস্তর।
জীব লাগি যুগে যুগে মোর অবতার।।
লক্ষগুণ পূণ্য কেহ সত্য যোগে করে।
ত্রেতার অযুত গুণ সমফল ধরে।।
দ্বাপরে শতেক গুণ সু-কৃৎ কলিতে।
যদিও ভীষণ কলি সহজ তরিতে।।
কলি আরম্ভের পাঁচ হাজার বৎসরে।।
অবতীর্ণ হব আমি অবন্তি নগরে।।
স্বর্গ বাসে যাবে তোক আমার কৃপায়।
হরিনাম অগ্নি সম কলি তুল্য প্রায়।।।
কলি অন্তে এক বর্ণ হইবে যখন।
কল্কি অবতারে তাহে করিব নিধন।।
এত শুনি যুধিষ্ঠির গোবিন্দ ভাবিয়া।।
শরীরে স্বর্গপুরে গেলেন চলিয়া।।
অবন্তী নগরে অতঃপর নারায়ণ।
সত্যনারায়ণ নামে অবতীর্ণ হন।।
সন্ন্যাসী বেশে প্রভু সত্যনারায়ণ।
ভিক্ষুক ব্রাহ্মণে এক দেন দরশন।।
একদিন সেই দ্বিজ সত্যনারায়ণে।
সন্ন্যাসীর বেশে ডাকি কহেন ব্রাহ্মণে।।
কোথায় কি হেতু দ্বিজ করেছ গমন।
প্রণাম করিয়া দ্বিজ কহে বিবরণ।।
দরিদ্র ব্রাহ্মণ আমি অবন্তীতে বাস।
কর্মদোষে দরিদ্রতা আসে ভিক্ষা আশ ।।
ভিক্ষা করি দেড় সের লয়ে যাই ঘরে।
দিনে লাগে দুই সের পেট নাহি ভরে।।
এত শুনি দয়া করি বলে নারায়ণ।।
শুনি দ্বিজ আমি হই সত্যনারায়ণ।।
আমারে পূজিলে হয় দুঃখ অবসান।
যাগ যজ্ঞ টাকা কড়ি নাহি প্রয়ো জন।।
ভক্তিতে ভজনে পূর্ণ হয় সর্বআশ।
অভক্তি করিলে তার হয় সর্বনাশ।।
দ্বিজ বলে নিজরূপ দেখাও আমারে।
তবে প্রতি মম হইবে অচিরে।।
নিজরূপ ধরিলেন দেব নারায়ণ।
পূর্বাজিত কর্মফলে দেখিল ব্রাহ্মণ।
ব্রহ্মা আদি দেব যারে ধ্যানে নাহি পায়।।
কমলা সেবিত পদ দেখিল দয়ায় ।
শঙ্খ চক্র গদা পদ্ম চতুভূজধারী।।
পরিধান পিতাম্বর যাই বলি হারী।।
কুন্ডল কর্ণেতে আর শিখি পুচ্চচূড়ে।
মকরন্দ লোভেকত মধুকর উড়ে।।
অঙ্গের ভূষণ কত শোভে নানা মতে।
দেখি অচেতন দ্বিজ পড়িল ভূমিতে।।
চেতনা পাইয়া দ্বিজ লোটায়ে চরণে।
বলে প্রভু দেখা মোরে দিলে কেন শুলে।।
দয়া করে কন তারে সত্যনারায়ণ।
অবতীর্ণ অবনীতে জীবের কারণ।।
কলির কলুষ রাশি বিনাশ করিতে।
সত্যনারায়ণ রূপ প্রকাশি জগতে।।
যাগ যজ্ঞ ক্রিয়া হীন ঘোর কলিকাল।।
আমাকে পূজিতে নাহি কিছুই জঞ্জাল।।
দিব্যপীঠে শুভ্র বস্ত্র করি আচ্ছাদন।।
পুষ্প মাল্য দিয়া তাহে করিবে রচন।
রাখিবে গুবাক পান চতুর্দিকে তার।
ধুপ দীপ নৈবৈদ্যাদি অনেক প্রকার।।
সোয়া করিয়া নানা, দ্রব্যাদি দিবে।
দুগ্ধ চিনি আটা আনি তাতে মিশাইবে।।
জ্ঞাতি বন্ধু সহযোগে মনোযোগ দিয়া।
পূজা কিংবা ভক্তি ভরে পাঁচালী শুনিয়া।।
প্রসাদ লইয়া সাধু অন্তরে করিবে।
অশান্তি অরিষ্ট ব্যাধি সবই ঘুচিবে।।
এত বলি সত্যদেব হন অদর্শন।
আনন্দে গেলেন দ্বিজ ভিক্ষার কারণ।।
সেইদিন ভিক্ষা প্রচুর পাইল।
গৃহে ফিরি ব্রাহ্মণীকে বার্তা সব দিল।।
ভিক্ষালবধ জিনিসের অগ্রভাগ দিয়া।
সত্যনারায়ণ পূজে ভকতি করিয়া।।
সেই মত আজ্ঞা পেল প্রভু নারায়ণ।
নিত্য সেই মত করি পূজিল ব্রাহ্মণ।।
ধনে জনে সম্পদে বাড়িল বহুতর।
সেই দেশের রাজা হৈল এই দ্বিজবর।।
একদিন কাষ্ঠ বেচি কাঠুরিয়া গণ।
তৃষ্ণাযুক্ত হয়ে যায় দ্বিজের ভবন।।
অশ্ব, গজ পদাতিক ঐশ্বর্য দেখিল।
দুঃখী দ্বিজ রাজা দেখি বিস্মৃতি হইল।।
দেখে সত্যনারায়ণে পূজিছে ব্রাহ্মণ।
তারা সবে দেখি পূজা করিল গমন।।
প্রসাদ লইয়া যায় কাষ্ঠ বেচিবারে।
চতুর্গুণ লভ্য তারা করিল সত্বরে।।
পূজার সামগ্রী আনি কাঠুরিয়া গণ।
ভক্তি ভরে সত্যদেবে সতত পূজয়।।
কাঠুরিয়া নদীতীরে পূজে নানা মতে।
ধনেশ্বর সওদাগর যায় সেই পথে।।
গৌড়েতে বসতি তার ডিঙ্গা বেয়ে যায়।
বাণিজ্য করিছে সাধু এথায় সেথায়।।
পূজা দেখি ডিঙ্গা রাখি উঠি তট দেশে।
কাঠুরিয়াগণে কহে সু-মধুর ভাষে।।
কার পূজা করিতেছ কিবা ফল তার।
কাঠুরিয়াগণে তারে কহিল বিস্তার।।
সাধু বলে মোর নাহি কোন দুঃখ।
একমাত্র সন্তানের দেখি নাই মুখ।।
পুত্র কিম্বা কন্যা এক যদি মোর হয়।
হাজার টাকার ভোগ মানিনু নিশ্চয়।।
কামনা করিয়া সাধু লইল প্রসাদ।
গৃহে গিয়া অবিলম্বে ঘুচিল বিষাদ।।
কন্যা এক জনমিল নারায়ণের বরে।
শশীকলা সমকন্যা দিনে দিনে বাড়ে।
ক্রমেতে বিবাহ কাল হইল উপনীত।
জামাতা আনিতে সাধু হলেন বিব্রত।।
রূপে গুনে চন্দ্র কেতু ছিল সওদাগর।
বিবাহ দিলেন কন্য করি সমাদর।।
অল্পকালে তাহার বিয়োগ হল মাতা পিতা।
পুত্র-বৎ নিজগৃহে রাখিল জামাতা।।
তবে কত দিনে সাধু বাণিজ্যেতে যাইয়া।
নানা দ্রব্য পুরি সপ্ত ডিঙ্গা সাজাইয়া।।
জামাতা সহিত যায় বাহি ভাগিরথী।
সত্যনারায়ণ পূজা হইল বিস্মৃতি।।
দৈবের নির্বন্ধ কেবা করয়ে খন্ডন।
অতঃপর যা হইল শুন তার বিবরণ।।


ত্রিপদী

নদ-নদী অতিক্রম               ডিঙ্গাবেয়ে দিবানিশি
আসিলেন সুরথ বন্দর।
রাজ ভেট দিয়া নানা,              করে কথা বেচা কিনা,
রজত কাঞ্চন বহুতর।।
সূৰ্য্য চন্দ্র কান্তমনি,           মতিহীরা লাল চুণী,
প্রবাল পরশ শিলাকত।
শঙ্খ চূনি গজমতি,        কস্তুরী চামর ইতি
রেশমী ও পশমী বনাও।।
অগুরু চুয়া চন্দন।       নানা দ্রব্যে সম্মোহন
ডিঙ্গা ভরি লইলেক কিনে।।
হেথায় রাজার পূরে         চোরে দ্রব্য চুরি করে,
সস্তায় বেচিল সাধু স্থানে।।
অল্প মূল্য বহুধন,           কিনে আনন্দিত মন।
কেবা জানে ঘটিবে প্রমাদ।।
আমোদ আহলাদে মাতি;          সুখে মত্ত দিবারাতি।
হেন কালে ঘটিল বিষাদ।।
ডাকি কহে মহিপাল,          শুন নরে কোটাল,
অকাতরে পড়ি নিদ্রা যাও।।
চোর ঢুকে রাজপুরে,           বহু দ্রব্য চুরি করে।
শীঘ্রচোর ধরি আনি দাও।
কোটাল ঘুরিছে তবে,               হেন কালে সত্য দেবে।
ভিক্ষুকের ছলে কহে তারে।।
ধর সাধু সওদাগরে।            পাবে দ্রব্য তথাকারে
শুনিয়া কোটালে ডিঙ্গা ধরে।
রাজার কন্ঠ হার                 গলে সাধু জামাতার ।
দেখিয়া কুপিল ভয়ঙ্কর।।।
সাধু আর জামাতারে             রাখে দোহে কারাগারে
ক্রমান্বয়ে দ্বাদশ বৎসর।।

পয়ার

হেথায় বহুদিন হয় সাধুর রমনী
কন্যা সহ আকুলিতা দিবস রজনী।।
গৃহদাহে সর্বস্বান্ত হয়ে অতিশয়।
বহু কষ্টে কাটে কাল নগরে ভ্রময়।।
একদা দেখিল গ্রামে সাধুরে দুহিতা।
সত্যনারায়ণের পূজা যতেক বর্ণিতা।।
মানস করিলা মনে পিতা পতি তার।
গৃহে যদি ফিরে পূজি সত্য-দেবতায়।।
গৃহে আসি জননীরে বলিলা সকল।
এক মনে নারায়ণে পূজে অবিকল।।
ভক্তিতে করিল দয়া সত্য দেবতায়।
স্বপ্ন ছলে আজ্ঞা করে সুরথ রাজায়।।
আমার কিংকর দুই সাধু সদাগরে।
কারাগার হতে দোঁহে ছাড়হ সত্বরে।
আপনার মঙ্গল যদি রাজা তুমি চাও।
ধন-রত্ন ডিঙ্গা সব ছেড়ে তারে দাও।।
স্বপ্ন ভেঙ্গে নৃপতির হল বড় ভয়।
দুই সাধু স্থানে তবে করজোড়ে কয়।।
ক্ষমা কর সদাগর না জানি বিশেষ।

লহ ডিঙ্গা, লহ ধন, যাও নিজ দেশে।
সাধু কহে নৃপবর তব দোষ নাই।
কর্ম দোষে ভুগিলাম এবে মোরা যাই।
এই বলি ডিঙ্গা খুলি সাধু চলে যায়।
সত্যদেব ছল করি জিজ্ঞাসে তাহায়।
কোথা যাও সওদাগর যাও কি লইয়া।
আমি ব্রাহ্মণ ভিক্ষা দাও তো ফেলিয়া।।
সাধু বলে লয়ে যাও লতাপাতা সবে।
ব্রাহ্মণ রোষিয়া বলে হৌক তাই তবে।
দেখিতে দেখিতে ধন সব হল লতা পাতা।।
ডিঙ্গা ভরি গেছে তার বহু লতাপাতায়।।
ধন না দেখিয়া সাধু জলে ঝাপ দিল।
চড়া হেতু প্রাণে সেই মরিতে নারিল।।
জামাতা লয়ে যায় ব্রাহ্মণের কাছে।
দোঁহে মিলি ব্রাহ্মণের পদে ধরি আছে।।
তবে সত্যনারায়ণ দয়াবান হয়ে।
ধনপূর্ণ কর ডিঙ্গা রোষ তেয়াগিয়ে।।
“অসত্যের লাগি মানি সহস্রেক টাকা।
আনি সত্যনারায়ণ ভূলিয়াছ পূজা”।।
তাই দোঁহে বার বর্ষ রাজপুরে সাজা।
এত বলি প্রভু যদি হল অন্তর্ধান।
সহস্র সুবর্ণ তোড়া বাধিল তখন।
দেশে আমি পূজা দিব মানস করিয়া ।।
তাড়াতাড়ি উপনীত হল দেশে গিয়া।
সংবাদ শুনিল সবে সাধুর দুহিতা।।
প্রসাদ মাটিতে ফেলি খাইল সৰ্ব্বথা।
সত্যনারায়ণ পুনঃ ক্রোধান্ধ হইয়ে।
চন্দ্রকেতু সাগরে ফেলিল ডুবায়ে ।।
জামাতা শশাকেতে আর সাধুর বর্ণিতা।
নন্দিনী সহিত কাঁদে ক্ষণেক মুচ্ছিতা।।

দীর্ঘ ত্রিপদী

হায় হায় মরি মরি                  কোথা যাই কিবা করি,
কাঁদে বামা সাধুর নন্দিনী।
কিবা মোর কর্ম ফল              পেলাম কত প্রতিফল
কেন নাহি যায় মোর প্রাণ।
পিতা মাতা প্রতি কহে              কিবা কাজ এই দেহে
পতি যথা যায় সেই স্থানে।
এতবলি সাধু সুতা।             হতে যায় অনুমৃতা
হেনকালে দৈব বাণী শুণে।।
পতির আনন্দে মেতে            প্রসাদ ফেলে ভূমিতে
এখন যে চাও মরিবারে।
পতির জীবন পাবে             প্রসাদ তুলিয়া খাবে
তারপর পূজো ভক্তি ভরে।।
মুক্ত কেশী হয়ে ধায়                  প্রসাদ মাটিতে পায়।
খাইলেক মৃত্তিকা সহিতে।
সত্যদেব দয়া হেতু               গদাধর চন্দ্র কেতু
ডিঙ্গা ভেসে উঠে আচম্বিতে।।

পয়ার

সওদাগর উল্লাসিত জামাতা পাইয়া।।
অঙ্গনা সকলে উঠে জয়ধ্বনি দিয়া।।
আম্রশাখা সারি সারি রম্ভা শত শত।
পূর্ণ কুম্ভ দিয়া করে মঙ্গল বিহিত।।
আনন্দে পুরিত মন হল সবাকার।
শকটে পুরিয়া ধন নিল নিজাগার।।
ভাঙ্গিয়া সহস্র তংকা সন্ধ্যাকালে সবে।
নানা বিধ ভোগদ্রব্যে পূজে সত্যদেবে।
সোয়াভাগ আটা চিনি দুধ আনি দিল।
তাম্বুলাদি দিয়া শেষে পাঁচালী শুনিল।
এইরূপে পূজিয়া নিত্য সত্যনারায়ণে।
রাজ্যপেল সদাগর তার কৃপাগুণে।।
অন্তকালে পত্নী সহ স্বর্গ পুরে পুরে যায়।
দেখি শুনি সত্যদেব পূজিল সবায়।।
পঙ্গু পদ অন্ধে চক্ষু বধিরে শ্রবণ।
কুষ্ঠরোগী ভাল হয় পূজি নারায়ণ।।
এতদূরে পাচালী যে সমাপ্ত হইল।
সত্যনারায়ণ প্রীতে একবার হরি হরি বল।।