আমরা সকলেই জানি শুভ কাজ কখনো দেরি করে করতে নেই । আমাদের সকলের ধারণা ‘শুভ কাজ শুভ ক্ষণেই করা উচিত’। শুভ দিনক্ষণ দেখে শুভ কাজের জন্য প্রস্তুতি নিতে হয় । কিন্তু আপনারা কি জানেন বাস্তুশাস্ত্র মতে এমন অনেক কিছুই রয়েছে যেগুলো মানলে আপনার কাজে সাফল্য আসবেই।

কিন্তু আমরা যারা জ্যোতিষচর্চার সঙ্গে যুক্ত তারা জানি কোনও শুভ কাজের ব্যাখ্যা কী হতে পারে। ধরুন মাছ বিক্রি করেন অর্থাৎ তার কাছে সেটা শুভ কাজ, কিন্তু অনেকের দৃষ্টিতে সেটা পাপ কারণ তা এক প্রকার জীব হত্যা।

আরেকটি বিষয় যেমন ধরুন কন্যার বিবাহের জন্য কোনও পিতা জুয়া বা ফাটকায় লাভ হবে কিনা তা জানতে জ্যোতিষীর দ্বারস্থ হন। অর্থাত্ মানুষ যে কাজটি তার নিজের উদ্দেশ্য সাধনের জন্য করে তার কাছে সেটাই শুভ কাজ।

শুভ কাজে বেরনোর আগে প্রত্যহ আমাদের কিছু নিয়ম মানা উচিত। রাতে বিছানায় যাওয়ার আগে ইষ্ট দেব দেবী বা গুরু বা যিনি যে ঠাকুর বিশ্বাস করেন তার নাম স্মরণ করে এবং তার কাছে নিজেকে সমর্পণ করে দেওয়া উচিত।

আবার পরের দিন সকালে ঘুম থেকে উঠে সূর্য প্রণাম করে, তারপর স্নান করে গুরু বা ঠাকুরের পূজা করে এবং বাড়িতে মা-বাবা ও গুরুজনদের প্রণাম করে দিনটি শুরু করা উচিত।

আসুন দেখে নেওয়া যাক কোনও শুভ কাজে যাওয়ার আগে আমাদের কী করা উচিত –

১) শুভ কাজে যাবার আগে কপালে চন্দনের ফোটা পরে যাওয়া ভালো ।

২) যদি নিজের রাশি জানা থাকে তাহলে সেই রাশি অনুযায়ী শুভ রঙের বস্ত্র পরিধান করুন।

৩) শুভ কাজে যাওয়ার আগে জ্যান্ত মাছ দেখে যাওয়া খুব শুভ।

৪) শুভ কাজে যাওয়ার আগে দই ও চিনি বা দইয়ের বিকল্পে ঘি ও চিনি মুখে দিয়ে যান, সাফল্য আসবে।

৫) শুভ কাজে বেরনোর আগে কারও সঙ্গে কোনও ঝগড়া করে যাওয়া একদম উচিত না, তার ফলে শুভ কাজটি ভেস্তে যেতে পারে।

৬) ঘরের দরজা থেকে বেরনোর সময় ডান দিকে জল, ফুল, বেলপাতা ভর্তি তামার ঘটি দেখে দেখে বেরনো খুব শুভ ফলপ্রদ হয়।

৭) বেরোনোর সময় গুরুজনদের প্রণাম করে বের হবেন।

৮) ঘর থেকে বেরোনোর সময় ডান পা আগে ঘরের বাইরে রাখুন ।

৯) বেরোনোর সময় ঘরের দরজার কোণে যদি  বের হন তাহলে যে কাজে যাবেন সেই কাজে সফলতা আসবে ।

যে কোনো কাজে সফলতা পাবার জন্য নিজের মধ্যে আত্মবিশ্বাস রাখুন । কখনোই নিজের উপর থেকে ভরসা হারাবেন না। নিজের যতটা সম্ভব পুরোটা উজাড় করে দিয়ে কাজ করবেন, সফলতা আসবেই।

জীবনের অনেক সময় অনেক খারাপ কিছু ঘটতেই পারে । তাই বলে সারাক্ষণ বা শুভ মুহুর্তে নেতিবাচক চিন্তা ভাবনা একেবারেই করবেন না।  কিন্তু সেই সব জিনিস মনে রেখে একদম চলবেন না।

অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে অতীতের করা ভুল গুলো সংশোধন করে সামনের দিকে এগিয়ে যান সাফল্য আসবেই। সফলতা পেতে শঙ্কা-আশঙ্কা করা বন্ধ করুন। যে কোনো কাজ হুট করে করার আগে সবদিক ভেবে চিন্তে নেওয়া উচিত।

তাছাড়া এমন কিছু জিনিস রয়েছে যেগুলো প্রতিদিন আপনাকে করা উচিত । রোজ রাতের বেলার ঘুমানোর আগে ভালো করে হাত পা ধুয়ে বিছানায় যাওয়া উচিত এবং ঘুমানোর আগে ঈশ্বরের নাম করে অর্থাৎ যার যার গুরুদেবের নাম নিয়ে উনার কাছে নিজেকে সমর্পন করে দেওয়া উচিত।

আর পরদিন ঘুম থেকে উঠে প্রথমেই ঈশ্বরের নাম বা ঠাকুরের নাম নিন আর বাড়ির গুরুজনদের প্রণাম করে দিনটি শুরু করুন । দেখবেন দিনের সবকিছু খুব ভালো ভাবে কাটছে ।