হিন্দু ধর্ম অনুসারে শনিবার শনিদেবতার দিন বলে মনে করা হয়।হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী শনির রোষ জীবন ছারখার করে দিতে পারে।কর্মফলদাতা ,ন্যায় দাতা শনিদেবকে লোকাচার অনুযায়ী রাগী, দণ্ডদাতা রূপে বর্ণনা করা হয়েছে,কিন্তু বাস্তব এটাই যে শনির না আছে কোনো মিত্র,না আছে কোনো শত্রু, উনি মানুষের কর্মর উপর কর্মের ফল প্রদান করেন।জ্য়োতিষশাস্ত্রে বিশ্বাসীদের মত কর্মফলের দেবতা শনিকে রুষ্ট করলে জীবনে আসতে পারে বড় বিপদ। যদি শনির ছায়া আপনার রাশিতে থাকে তবে আপনার কোনও কাজই সম্পূর্ণ হবে না। সমস্ত কাজ খারাপ হতে শুরু করবে এবং আপনি অযথাই সমস্যায় জড়িয়ে পড়তে পারেন। তাই কথিত আছে, শনিবার এই ভগবানের উপাসনা করে যদি খুশি করা যায় তবে শনিদেবের ক্রোধও এড়ানো যায়। তাই শনিদেবের কৃপাদৃষ্টি বজায় রাখতে এবং তাঁর ক্রোধ এড়াতে শনিবার তাঁর উপাসনা করা উচিত। 

 

শনিদেবকে তুষ্ট রাখতে ও সৌভাগ্য পেতে এদিন কী করবেন আর কী করবেন না।

উষাক্ষনে সূর্যদেবকে দর্শনের পর দুচোখ বন্ধ করে এই স্তবটি পাঠ করলে শনিদেব অত্যন্ত প্রসন্ন হন –

সূর্যপুত্র দীর্ঘদেহী বিশালাক্ষঃ শিবপ্রিয়ঃ।

মন্দচারঃ প্রসন্নাত্মা পীড়া দহতু মে শনিঃ।।

শনিদেবকে বলা হয় ন্যায়ের প্রতিক।তিনি ধার্মিক ও অধার্মিকদের কাজ মিলিয়ে দেখে বিচার করেন। এজন্য অধার্মিক বা অন্যের ক্ষতি হতে পারে এমন কাজ করবেন না।যাঁরা অধর্মের কাজ করেন,শনির রোষানলের মুখে  তাদেরই পরতে হয়। ধার্মিকদর উপরে কখনও অত্যাচার করবেন না। ধর্মের পথে থাকুন। তাহলে শনিদেবের কৃপা থেকে বঞ্চিত হবেন না।

 

শনিবার কালো গরুর পুজো করুন। তাঁকে চাল ও লাড্ডূ খাওয়ান। মাথায় দিন কুমকুমের তিলক। পুজোর পরে ওই গরুটির চারপাশে প্রদক্ষিণ করুন। তাহলে শনিদেব সন্তুষ্ট থাকে।

শনিবার কালো গরুর পুজো করুন। তাঁকে চাল ও লাড্ডু খাওয়ান। মাথায় কুমকুমের তিলক দিন।পুজার পরে ওই গরুটির চারপাশে প্রদক্ষিণ করুন। 

শনিদেবকে তুষ্ট রাখতে শনিবারে অবশ্যই নিরামিষ আহার করবেন।

প্রতি শনিবার  সূর্যাস্তের পর লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা পিপুল গাছে (অশ্বত্থ গাছ) জল ঢেলে ও শনিদেবের উপাসনা করলে শনিদেব তার প্রতি অত্যন্ত প্রসন্ন হয়ে সার্বিক সুখ ও আনন্দ প্রদান করে থাকে।

যে কোনও দিন কেনা ঘোড়ার ক্ষুরের আংটি শনিবার স্নানের পর প্রথমে কাঁচা দুধ, পরে গঙ্গাজল দিয়ে ধুয়ে, শনিদেবকে উদ্দেশ করে প্রণাম জানিয়ে ডানহাতের মধ্যমায় ধারণ করতে হবে । এতেও  শনিদেবের অশুভত্ব দোষ ও প্রভাব দূর হয়।

শনিবার দানের মাহাত্ম্য রয়েছে। অভাবী ও দরিদ্র লোকদের দান করলেও শনিদেব খুশি। কালো বস্ত্র বা কম্বল দান করুন।যেটুকু সম্ভব অর্থও দান করতে পারেন।

শনিবারে কোনো লোহার জিনিস কিনবেন না।এতে শুভ ফল নাও আস্তে পারে।প্রতি শনিবার ব্রত রাখতে পারেন।নীল ফুল দ্বারা শনির পুজা করুন।

শাস্ত্র অনুযায়ী এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে প্রতি শনিবার যদি হনুমান চল্লিশা পাঠ করা হয়, তাহলে আমাদের চারপাশে শুভ শক্তির প্রভাব এতটা বেড়ে যায় যে মনের জোর বাড়তে শুরু করে।সূর্যাস্তের সময়ে হনুমানের পুজো করুন। তিলের তেল, সিঁদুর ও নীল ফুল দিয়ে আরাধনা করতে হবে। শনির অশুভ দৃষ্টি থেকে ভক্তদের বাঁচান বজরংবলি। ফলে জীবন পথে চলতে যতই বাধা আসুক না কেন, তা এড়িয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে কোনো কষ্টই হয় না। প্রতি শনিবার সকালবেলা স্নান সেরে হনুমান চল্লিশা পাঠ করা প্রয়োজন।