উপহার যেমন তেমন হতে পারে, ভালবাসা তাতে মিশে থাকলেই হল। সেই আদি কাল থেকেই ভাইফোঁটায় ভাই-বোনের মধ্যে উপহার লেনদেনের চর্চা আছে। সে যত যৎসামান্য উপহারই হোক না কেন, তাতে ভালবাসার পরশটুকু থাকেই। হতদরিদ্র ভাই-বোনও এ দিন মনে মনে অঙ্গীকার করে পরস্পরের প্রতি সৎ ও স্নেহপরায়ণ থাকতে। তাদের উপহার হয়তো সেটাই।

আবার কোথাও বিত্তবান ভাই-বোন নিজেদের পছন্দের কোনও বহুমূল্য উপহার তুলে দেয় পরস্পরের হাতে। সময় বদলেছে। তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভাইফোঁটার উপহারের তালিকায় এখন আমূল পরিবর্তন এসেছে। উপহারটা হয়ে গিয়েছে প্রয়োজন ভিত্তিক।

এ বারের ভাইফোঁটায় তাই চিরকালের চেনা উপহারগুলোর পরিবর্তে কিছু অচেনা অথচ কাজে লাগার মতো জিনিস তুলে দিতেই পারেন প্রিয় ভাই বা বোনের হাতে। রইল তেমনই কিছু উপহারের সুলুকসন্ধান। যা বাজেটেও হবে আবার অপ্রত্যাশিত উপহার দেখে চমকে যাবে ভাই-বোন।

● টেকস্যাভি হলে ভাইয়ের হাতে তুলে দেওয়া যেতেই পারে স্মার্ট ওয়াচ।

● বোন বা দিদির সাজগোজের প্রতি ঝোঁক আছে? তা হলে চিরচেনা শাড়ি বা অন্য কোনও পোশাকের পরিবর্তে তাঁকে দিতেই পারেন ওয়াটারপ্রুফ মেকআপ কিট। অনলাইন তো বটেই, একটু নামী দোকানেও মিলবে এমন কিট বক্স। দামও পকেটসই।

● ভাই বা বোনের বই পড়ার নেশা থাকলে তাঁকে উপহার দিন তাঁর পছন্দের লেখকের কোনও বই।

● বাজেট একটু বেশি হলে ভাই বা বোনকে দিতে পারেন একটা স্মার্টফোন। অনলাইনে এখন প্রায়ই চলে ইলেকট্রনিক গ্যাজেটসের দারুণ সব অফার। তাই স্মার্টফোন হতেই পারে গ্যাজেটপ্রিয় মানুষের জন্য সেরা উপহার।

● দেখতেও ভাল আবার রোজের কাজেও আসবে এমন উপহারের পরিকল্পনা থাকলে একটা স্লিং ব্যাগও বেছে নিতে পারেন উপহার হিসেবে।

● ভাইফোঁটায় মিষ্টি বা চকোলেট তো থাকেই, ভাই বা বোন খেতে ভালবাসলে তাঁদের হাতে তুলে দিন কোনও নামী রেস্তরাঁয় খাওয়ার পাস। ভাইফোঁটা উপলক্ষে বিভিন্ন রেস্তরাঁ নির্দিষ্ট মূল্যের এমন কিছু পাসের ব্যবস্থা করে। সেই মূল্য আগাম মিটিয়েও তেমন পাস হাতে পাওয়া যায়। ভাই বা বোনকে উপহার দিন তেমনই কোনও পাস।

● ভাই যদি টেকস্যাভি হয়, তা হলে তার জন্য কিনে ফেলতে পারেন একটা স্মার্টওয়াচ। এ ছাড়া দিতে পারেন ওয়ারলেস ব্লু টুথ হেড সেট কিংবা একটা হেড ফোন।

● পড়ুয়া হলে বইও হতে পারে পছন্দের উপহার।

● ভাই স্টাইল কনশাস হলে তাকে দিতে পারেন ট্রিমার বা আধুনিক কিছু শেভিং মেশিন। কোনও কোনও স্যাঁলোতে এই সময় কিছু ছাড়ও মেলে। তেমন কোনও ডিসকাউন্ট কুপনও উপহার দিতে পারেন তাঁকে। বোনের বেলাতেও এই নিয়ম খাটে।

● ভ্রমণপ্রিয় হলে একে অন্যকে উপহার হিসেবে দিতেই পারেন একটা ট্র্যাভেল ব্যাগ বা ভাইয়ের হাতে তুলে দিতে পারেন ট্রাভেল ফ্রেন্ডলি শেভিং কিট।

● ভাই বা বোনের নতুন বিয়ে হয়েছে? তা হলে তাদের হাতে তুলে দিন বেড়াতে যাওয়ার টিকিট আর হোটেল রিজার্ভেশনের কপি। বিয়ের পরেই এমন উপহার সহজেই মন ভাল করে দেবে, আজীবন মনেও থাকবে।

● সিনেমা দেখতে ভালবাসলে যাতে সে তার বন্ধু বা ভালবাসার মানুষের সঙ্গে কিছুটা সময় উপভোগ করতে পারে, তাই তার হাতে তুলে দিন কাপল মুভি পাস।

● বাজেট একটু কম হলে লিস্টে রাখতে পারেন টিশার্ট, কফি মগ, পারফিউম, পেনের মতো উপহার।

● কথায় বলে না, ‘ইয়োর পারফিউম ইজ ইয়োর মেসেজ, ইয়োর সেন্টেড স্লোগান!’ তাই পছন্দের যে কোনও ব্র্যান্ডের ভাল সুগন্ধি পেলে আপনার ভাই খুশি হবেন নিঃসন্দেহে। বাজেট অনুযায়ী জুড়ে দিতে পারেন ডিও।

● হাজার কাজের চিন্তায় ভাইটির নিশ্চয়ই মনে থাকে না মানিব্যাগ পাল্টানোর কথা? দায়িত্ব নিন আপনি। ভাল মানের লেদারের ব্যাগ পেতে পারেন যে কোনও বড় দোকানে। আর আপনার ভাইটি যদি হয়ে থাকে নিতান্তই খুদে সদস্য, মানিব্যাগ দিয়ে তাকে উপহার দিতে পারেন বড় হওয়ার স্বাদ!

● আপনার ভাই বা বোন কি শারীরচর্চায় মত্ত? দিনের বেশির ভাগটাই কাটান জিমে অথবা জুস ব্লেন্ডারের সামনে? তা হলে ভাইকে দিতে পারেন ক্যালরি কাউন্টিং ব্যান্ড। অর্থাৎ দিনের কতটা সময়ে কত ক্যালরি ইনটেক আর আউটপুট হল, তার হিসেব রাখা যাবে সহজেই। আর ভাই বা বোনও একটু একটু করে এগিয়ে যেতে পারবেন সাধের অ্যাবস মেনটেনের দিকে। চাইলে দিতে পারেন স্পোর্টস স্পেশ্যাল ফ্লিপ ফ্লপ বটলও।

● বই পড়তে কে না ভালবাসে! আর আপনার ভাই বা বোন যদি হয় এক্কেবারে পড়ুয়া, তা হলে বই হল আদর্শ উপহার। এ বছরের বেস্টসেলার তালিকা থেকে খুঁজে কিনে ফেলুন নতুন বইটি। কিংবা দিতে পারেন কিছু পুরনো ক্লাসিক বই। অথবা আপনার স্বাস্থ্য সচেতন বোনের জন্য উপহার দিতে পারেন লো ক্যালরি রেসিপির বই।

● আপনার বাজেট যদি খানিকটা বেশি হয়, তা হলে কিনতে পারেন বুক রিডিং গ্যাজেটও। মানে কিন্ডল জাতীয় গ্যাজেট এক বার যদি হাতে প়়ড়ে তার, তবে বইয়ের ভাণ্ডার হবে অফুরান।

● ভাই কিংবা বোনটি নিত্যদিনের কাজের ফাঁকেই কি দিনলিপি বা টুকটাক গল্প-কবিতা লিখতে ভালবাসে? তা হলে দামি পেনের সেট হতেই পারে ভাইফোঁটার উপহার। চাইলে দিতে পারেন অন্য ধরনের ফেদার ফাউন্টেন বা কুইল পেন। মানে কালির দোয়াতে ডুবিয়ে লেখার মজাটাই এনে দেবে পুরনো দিনের ফিল।

● প্লেটভর্তি মিষ্টির পাশাপাশি খাদ্যঅন্তপ্রাণ ভাই বা দাদার জন্য নিজের হাতে বানিয়ে ফেলুন চকোলাভা কেক কিংবা হোমমেড চকলেট। সুদৃশ্য মোড়কে মুড়ে হাজির করতে পারেন আদরের ভাইটির জন্য। আর ভাইয়েরাও পিছিয়ে পড়বেন না। বোনের জন্য হাজির করতে পারেন তাদের প্রিয় বিদেশি চকলেট।

● আপনার ভাই বা বোনটির পোষ্য খুব পছন্দ? তা হলে এই বিশেষ দিনে তার বাড়িতে হাজির হোন কাচের বড় ফিশ বোল নিয়ে। সঙ্গে গোল্ড ফিশ বা অ্যাঞ্জেল ফিশ দিতে ভুলবেন না কিন্তু। ইচ্ছে হলে ছোট্ট বাস্কেটে করে তোয়ালেতে মুড়ে উপহার দিতে পারেন তুলতুলে এক বেড়ালছানা!

● আপনার ভাই বা বোন যদি হয় সবুজবিলাসী, তা হলে গাছের চেয়ে ভাল উপহার কীই বা হতে পারে! নার্সারি বা অনলাইনে আনা সুদৃশ্য টবে বাহারি ক্যাকটাস বা অর্কিড দিলে, মন পাবেনই তার। দু’জনেই দু’জনকে উপহার দিতে পারেন চারা গাছ। পরিবেশ বান্ধব তো বটেই তবে এই চারা যত্নে বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আজীবন আপনাদের দু’দনের ভালবাসার সাক্ষী হয়েও থাকবে।

সোর্সঃ সংগৃহিত