ধনতেরাসের দিন, ক্ষণ ও নির্ঘণ্ট

এইবছর ধনতেরাসের তিথি পড়েছে ১২ নভেম্বর, ত্রয়োদশী ১২ নভেম্বর ভারতীয় সময় সন্ধ্যে ৬ টা বেজে ২১ মিনিট থেকে পরের দিন বিকাল ৪ টা বেজে ২ মিনিট পর্যন্ত। আর, ধনতেরসের প্রদোষকাল শুরু হবে ১৩ নভেম্বর ভারতীয় সময় বিকেল ৫:২৮ মিনিট থেকে, শেষ হবে ভারতীয় সময় সন্ধ্যে ৮:০৭ মিনিটে। পর্যন্ত। শাস্ত্র মতে, এই সময়ের মধ্যেই সোনা বা অন্যান্য ধাতু কেনা শুভ।

ধনতেরসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ধনতেরাস শব্দটি দুটি শব্দ দ্বারা গঠিত – ‘ধন’ অর্থাৎ অর্থ বা ধন এবং ‘তেরাস’ কৃষ্ণপক্ষের ত্রয়োদশ দিনটিকে উপস্থাপন করে। ধনতেরসের আর এক নাম ধনাত্রয়োদশী বা ধনবত্রী ত্রয়োদশী। কথিত আছে, এইদিনেই সমুদ্র মন্থনের সময় দেবী লক্ষ্মী দুধের সমুদ্র থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন।

তাই এইদিনে দেবী লক্ষ্মীর পূজা করা হয়। পারিবারিক ও অর্থনৈতিক শ্রী বৃদ্ধির কামনায় একাধিক ধাতুর জিনিস কেনার চল রয়েছে ধনতেরসের সময়। বিভিন্ন অলংকার যেমন সোনা, রুপা ছাড়াও কাঁসার, তামার বা পিতলের জিনিস কেনা হয়ে থাকে এইসময়।

ব্যবসায়ীদের ধনতেরাস

ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের কাছে এই দিনটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। শাস্ত্র মতে ধনতেরাস এর দিনে ঘরে বা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে নতুন কোনও ধাতুর জিনিস আনলে ঘটে ‘শ্রী-বৃদ্ধি’। আবার ধনতেরাসের দিন অনেক ভারতীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের অর্থবর্ষের সূচনা হয়; লোকজন নতুন বর্তন, বাসন, গয়না প্রভৃতিও কিনে থাকেন এই দিনে। তবে বেশির ভাগ বাঙালি ব্যবসায়ীদের অর্থবর্ষের সূচনা হয় পয়লা বৈশাখে।

ধনতেরসের পুজোর উপযুক্ত সময়

ধনতেরসের পুজো কার্তিক মাসের কৃষ্ণপক্ষে ত্রয়োদশী তিথিতে প্রদোষকালে সম্পন্ন হয় ধনতেরসের পুজো। প্রদোষকাল অর্থাৎ সন্ধ্যাকালে ধনতেরসের পুজো করা হয়। তবে ধনতেরাস উৎসবের জন্য পুন্যক্ষন বা সন্ধিক্ষন শুরু হয় প্রদোষ কাল ও ত্রয়োদশী তিথির সম্মিলিত সময়ে।