পৌরাণিক কথা অনুযায়ী কার্তিক মাসের কৃষ্ণপক্ষের ত্রযোদশ তিথির দিন ধন্বত্বরীর জন্ম হয় । এই জন্য এই তীথি ধনতেরাস তিথি নামেও পরিচিত।ওই দেবতার উত্থান কালে উনার হাতে অমৃতের কলসে পরিপূর্ণ ছিলো।

যেহেতু কলস হাতে নিয়ে আবির্ভূত হয়েছিলেন তাই এদিন নতুন বাসনপত্র কেনার ও রেয়াজ আছে। আবার কথিত রয়েছে, রাজা হিমার পুত্রবধূ তাঁর স্বামীকে বাঁচিয়ে ছিলেন যমরাজের কোপ দৃষ্টি থেকে।

যে ঘরে তাঁর স্বামী ছিলেন তার দরজার কাছে সোনা, রূপা, প্রদীপ ইত্যাদি সাজিয়ে রেখে ঘরটিতে উজ্জ্বল করে তোলেন। আর ঘরের উজ্জ্বলতা দেখে ফিরে যান যমরাজ। আর সেই ঘটনা ঘটে ধনতেরসের দিনই। সেই ঘটনা ঘিরেই ধনতেরসের সোনা, রূপা কেনবার প্রচলন রয়েছে।

কি কি কিনবেন না

ধনতেরসে সোনা-রূপো কিনলে যে ঘরে লক্ষ্মীদেবী বাঁধা পড়েন, সে তো জানা কথা। কিন্তু শাস্ত্রমতে এদিন অনেক কিছু কেনার ওপর নিষেধাজ্ঞাও কিন্তু আছে। অশুভ প্রভাব এড়াতে এদিন কী কী কিনবেন না, তা জেনে নিন।

১. এই তালিকায় প্রথমেই আসবে লোহার নাম। লোহার বাসন বা লোহার অন্য কোনও দ্রব্য ধনতেরসে ভুলেও কিনবেন না। এটি কিন্তু আপনার জীবন শেষ করে দিতে পারে। অনেকেই ধনতেরসে স্টিলের বাসন কিনে থাকেন। কিন্তু জানেন কি, স্টিল যেহেতু লোহারই আরও একটা রূপ, তাই স্টিলও এদিন এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

২. খালি কলসি বা হাঁড়িও এদিন ঘরে নিয়ে আসা ভালো নয়। জানি দোকান থেকে আপনাকে খাবার ভর্তি বাসন বিক্রি করবে না। তাই বাড়িতে নিয়ে আসার আগে ওই পাত্রে জল ভরে নিন।

৩. ধনতেরসে কখনোই কোনও ধারালো বস্তু যেমন ছুরি-কাঁচি কিনবেন না।

৪. ধনতেরাস কেনাকাটার জন্য শুভ বলে অনেকেই এগিন গাড়ি কেনেন। কিন্তু তা না করাই ভালো। একান্তই কিনতে হলে গাড়ির দাম আগের দিনই মিটিয়ে দিন।

৫. তেল, ঘি জাতীয় দ্রব্য এদিন কিনবেন না। রান্নার জন্য আগে থেকে তেল বা ঘি কিনে ঘরে রেখে দিন।

৬. কালো রঙের যে কোনও কিছু ধনতেরসে কিন্তু না কেনাই ভালো। ধনতেরসে কালো রঙের দ্রব্য কিনতে তা দুর্ভাগ্য বয়ে আনে বলে বিশ্বাস।

৭. ধনতেরাস ও দিওয়ালিতে অনেকেই প্রিয় মানুষদের উপহার দেন। এই উপহার কিন্তু ধনতেরসের দিন কিনবেন না। আগে থেকে কিনে রেখে দিন।

৮. কাঁচের সঙ্গে রাহুর যোগ রয়েছে। তাই কাঁচের কোনও দ্রব্য ধনতেরসে এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

৯. যে একটি বস্তু থেকে ধনতেরসে দূরে থাকবেন, তা হল নকল সোনা। সোনা কনা ধনতেরসে শুভ হলেও নকল গোল্ড প্লেটেড গয়না এদিন ভুলেও কিনবেন না।

সোনা ছাড়া আর কী কিনতে পারেন

১. তামা বা পেতলের বাসন এদিন কিনুন। এবং তা ঘরের পূর্ব দিকে রাখুন।

২. রূপোয় বাসনপত্র কেনা এদিন অত্যন্ত মঙ্গলজনক। নতুন বাসন কিনে ধনতেরসের দিন সেটি ঘরের পূর্ব দিকে রাখবেন।

৩. ধনতেরসের দিন ঝাড়ু কেনাও মঙ্গলজনক। ঝাড়ু কেনার অর্থ আপনি দারিদ্র্যকে ঘর থেকে বিদায় করছেন।

৪. বৈদ্যুতিক সামগ্রী যেমন ফ্রিজ, মোবাইল ফোন বা মাইক্রোওভেন কিনতে পারেন এদিন। নতুন কেনা বৈদ্যুতিক সামগ্রী ধনতেরসে উত্তর-পশ্চিম দিকে রাখুন।

৫. এছাড়া আপনার পেশার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত যে কোনও সামগ্রী ধনতেরসে কেনা যায়। যেমন ব্যবসায়ীরা অ্যাকাউন্ট রেজিস্টার কিনতে পারেন। অফিসের পশ্চিম দিকে এটি রাখবেন।

৬. যাঁরা লেখাপড়ার কাজের সঙ্গে যুক্ত তাঁরা পেন কিনতে পারেন।

৭. পেশাদার শেফরা কিনতে পারেন রান্নার যে কোনও সামগ্রী।

৮. কিনতে পারেন লক্ষ্মী-গণেশের সোনার কয়েনও।

সোনার কয়েন কিনতে পকেটে বেশি চাপ পড়লে লক্ষ্মী-গণেশের ছবি কিনেও শ্রী সুক্তা মন্ত্র পাঠ করতে পারেন। ধনতেরসে স্বস্তিক চিহ্ন বাড়ির মূল দরজার বাইরে লাগান। এটি আপনার জীবনে সৌভাগ্য আনবে।

১১টি গোমতী চক্র কিনে হলুদ কাপড়ে মুড়ে আলমারি বা লকারের মতো কোনও নিরাপদ স্থানে রাখুন। রূপো চাঁদের একটি প্রতীক চাঁদ শান্তি প্রদান করে ও আমাদের মনকে শান্তি প্রদান করে। মনের সন্তুষ্টিকে পৃথিবীর বড়ো সম্পদ বলা হয় ।যাদের কাছে স্বাস্থ্য ও সন্তুষ্টি আছে তারাই হলো আসল সম্পদ শালী।