বলয় ও পূর্ণগ্রাস

চাঁদ যখন পরিভ্রমণরত অবস্থায় কিছু সময়ের জন্য পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে এসে পড়ে, তখন পৃথিবীর কোন দর্শকের কাছে সূর্য আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে অদৃশ্য হয়ে যায় কিছু সময়ের জন্য।

এই ঘটনাকে সূর্যগ্রহণ বলা হয়। যখন সূর্য ও পৃথিবীর মাঝখানে চাঁদ অবস্থান নেয়, তখন পৃথিবীপৃষ্ঠের পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে সূর্য চাঁদের পেছনে আড়ালে চলে যায় এবং সূর্যের গ্রহণ ঘটে।

সূর্য ও চন্দ্রগ্রহণকে ঘিরে বহুকাল থেকেই অনেক পৌরাণিক কাহিনি প্রচলিত রয়েছে। শুধু ভারত নয়, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে গ্রহণ ঘিরে রয়েছে একাধিক ধর্মীয় ও সংস্কৃতিগত ‘বিশ্বাস’।

জ্যোতিষ মতে মনে করা হয় অনেকেরই কোষ্ঠীতেই গ্রহণ দোষ থাকে। কালসর্প,পিতৃদোষ, মাঙ্গলিকের মতো গ্রহণ দোষও একটি দোষ।

বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ কী?
পৃথিবী ও সূর্যের মধ্যে এক সরলরেখায় চাঁদ এসে গেলে সেই ছাড়ায় পৃথিবী পৃষ্ঠে পড়ে। এই মহাজাগতিক ঘটনার নাম সূর্যগ্রহণ। যদিও এই মুহূর্তে চাঁদ পৃথিবী থেকে কিছুটা দূরে থাকার কারণে চাঁদের প্রচ্ছায়া পৃথিবীর উপরে পড়বে। এর ফলে সূর্যকে একটি বলয়ের মতো দেখাবে।

কখন হয় গ্রহণ?
প্রসঙ্গত, চাঁদ যখন পরিভ্রমণরত অবস্থায় কিছু সময়ের জন্য পৃথিবী ও সূর্যের মাঝখানে এসে পড়ে, তখন পৃথিবীর কোন দর্শকের কাছে সূর্য আংশিক বা সম্পূর্ণরূপে অদৃশ্য হয়ে যায় কিছু সময়ের জন্য।

এই ঘটনাকে সূর্যগ্রহণ বলা হয়। অন্যদিকে, যখন সূর্য ও পৃথিবীর মাঝখানে চাঁদ অবস্থান নেয়, তখন পৃথিবীপৃষ্ঠের পর্যবেক্ষকের সাপেক্ষে সূর্য চাঁদের পেছনে আড়ালে চলে যায় এবং সূর্যের গ্রহণ ঘটে।

আবার পৃথিবী যখন চাঁদ ও সূর্যের মধ্যে আসে তখন পৃথিবীর আড়ালে চাঁদ ঢাকা পড়ে এবং চন্দ্রগ্রহণ হয়।

বছরে কতবার হতে পারে সূর্যগ্রহণ?
একটি বছরে দুই থেকে ৫ টি সূর্যগ্রহণ সংগঠিত হতে পারে। তবে একটিই বছরে ৫ টি পর পর সূর্যগ্রহণ অত্যন্ত বিরল। এমনই জানাচ্ছে মার্কিন মহাকাশ বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্র নাসা।

শেষবার ১৯৩৫ সালে একই বছরে পর পর ৫ টি সূর্যগ্রহণ হয়েছিল। এরপর ২২০৬ সালে একই বছরে ৫ টি সূর্যগ্রহণ হবে বলে দাবি ‘টাইম অ্যান্ড ডেট ডট কম’ এর।

প্রতি ১৮ মাসে গ্রহণ: পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ প্রতি আঠারো মাসে হয়ে থাকে বা হতে পারে। পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণের ক্ষেত্রে অন্তত ৯০ শতাংশ অংশকে চাঁদ ঢেকে ফেলতে পারলে তবেই তা পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ হয়।

একসঙ্গে উত্তর-দক্ষিণ মেরুতে নয়: পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ কখনও একইসঙ্গে উত্তর এবং দক্ষিণ মেরু থেকে দেখা সম্ভব নয়।

অনলাইনে সূর্যগ্রহণ দেখবেন কীভাবে?
Slooh.com ওয়েবসাইট থেকে এই সূর্যগ্রহণ লাইভ স্ট্রিম করা হবে। এছাড়াও YouTube থেকে গ্রহণের দিন ভারতীয় সময় সকাল 8 টায় গ্রহণের অনলাইন স্ট্রিম শুরু হবে।

সুরক্ষিত উপায়ে সূর্যগ্রহণ দেখবেন কীভাবে?
নিজে চোখে সূর্যগ্রহণ দেখার আগে চোখের সঠিক সুরক্ষা অবশ্যই নিতে হবে। খালি চোখে সূর্যগ্রহণ দেখলে চিরতরে চোখের ক্ষতি হতে পারে।

গ্রহণ কাটতেই কী কী করণীয়?
শাস্ত্রজ্ঞরা বলছেন, গ্রহণ মিটে গেলে , তারপর পূজার সময় ঈশ্বরকে কোনও কিছু অর্পণ করা অত্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। পাশাপাশি, গ্রহণের পর সূর্যদেবতার মন্ত্রপাঠ করা অত্যন্ত শুভফলদায়ক বলে মনে করা হয়।

গ্রহণ ঘিরে কোন কাজ করা উচিত নয়?
শাস্ত্র বলছে, সূর্যগ্রহণের সময় বাইরে থাকা, বা কোনও কারণে বেড়ানো ঠিক কাজ নয়। তাতে জ্যোতিষমতে খানিকটা খথারাপ প্রবাব পড়তে পারে ব্যক্তির উপর। কোনও শুভ কাজ গ্রহণের সময়কালের মধ্যে করতে বারণ করছেন শাস্ত্রজ্ঞরা।

কোষ্ঠীতে গ্রহণ দোষ কী?
বৈদিক জ্যোতিষদের মতে সূর্য ও চন্দ্রের গহণের মাধ্যমে অনেকরই ভাগ্যে গ্রহণ দোষ থাকে। এই অশুভ দোষের জন্য অনেক সমস্যা সৃষ্টি হয় মানুষের জীবনে।

যদি কারোর কোষ্ঠিতে লগ্নের দিক থেকে দ্বাদশভাবে সূর্য ও চন্দ্রের সঙ্গে রাহু বা কেতুর মধ্যে কোনও একটি গ্রহ স্থিত হয়, তাতে তখন তৈরি হয় গ্রহণ দোষ। এর ফলে কর্মক্ষেত্রে অনেক সময় সমস্যা তৈরি হয়।

জ্যোতিষবিদদের মতে সূর্য ও চন্দ্রগ্রহণের দিনগুলিতে এই গ্রহণদোষের কথা মাথায় রেখে অনেকেই নিজের পদক্ষেপ নির্ধারণ করে থাকেন।

বাস্তু টিপস সূর্যগ্রহণ ঘিরে
বাস্তুশাস্ত্র বলছে, সূর্যগ্রহণের দিন জলের মধ্যে রেখে দিতে হবে একটি তুলসীর পাতা। আর ততেই যাবতীয় বিপত্তি নাশ হতে পারে এই গ্রহণ ঘিরে।

জল পান নিয়ে বাস্তু টিপস
সূর্যগ্রহণের দিন যে সময় গ্রহণ লাগছে সেই সময় যেন ১৫ মিনিটের জন্য গৃহস্থ কেউ জল পান না করেন। বাস্তুশাস্ত্র মতে এই কাজে সুফল মেলে পরবর্তী পর্যায়ে।

কী কী দান করা যায়?
সূর্যগ্রহণের দিন চিনি, গম, নুন জাতীয় বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য় যেন কাউকে দান করা হয়, এমনই পরামর্শ দিচ্ছেন বাস্তুশাস্ত্রবিদরা। তাঁদের দাবি, এই সময়ে এমন দান করলে তা গৃহস্থের সমস্যা দূর করে।